সফল লোকেদের ৭ টি এফেক্টিভ অভ্যাস

7 habits of highly effective people

আজকে আমি সেভেন হ্যাবিটস অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল এই বইটি থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট সামারি হিসাবে ব্লগ পোস্টে লিখব সেভেন হ্যাবিটস অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল নিউইয়র্ক টাইমস বেস্ট সেলার বই এই বইতে জীবনে সফল হতে গেলে যে অভ্যাস গুলো দরকার দরকার তা বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা হয়েছে লেখক আলোচনা করা হয়েছে লেখক সমস্ত সফল মানুষদের মধ্যে কমন অভ্যাস গুলো খুঁজে বার করেছেন এবং বইয়ের করেছেন এবং বইয়ের আকারে আমাদের সামনে তুলে ধরেছে সুতরাং এই বইটি একটি অমূল্য সম্পদ এবং আজ এই বই থেকে বেশকিছু লেসেন আপনাকে দেওয়া হবে

আজকে আমি সেভেন হ্যাবিটস অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল এই বইটি থেকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট সামারি হিসাবে ব্লগ পোস্টে লিখব সেভেন হ্যাবিটস অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল অফ হাইলি সাকসেসফুল পিপল নিউইয়র্ক টাইমস বেস্ট সেলার বই এই বইতে জীবনে সফল হতে গেলে যে অভ্যাস গুলো দরকার দরকার তা বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা হয়েছে লেখক আলোচনা করা হয়েছে লেখক সমস্ত সফল মানুষদের মধ্যে কমন অভ্যাস গুলো খুঁজে বার করেছেন এবং বইয়ের করেছেন এবং বইয়ের আকারে আমাদের সামনে তুলে ধরেছে সুতরাং এই বইটি একটি অমূল্য সম্পদ এবং আজ এই বই থেকে বেশকিছু লেসেন আপনাকে দেওয়া হবে

বি প্রো-অ্যাকটিভ (Be Proactive):

সফল লোকেরা সবসময় একটিভ থাকে প্রো একটিভ কথার অর্থ হল তারা তাদের জীবনের দায়িত্ব নিজের হাতে নেয় ভাগ্য বা পরিস্থিতিকে প্রেম করে না না যারা অসফল মানুষ বাড়ি রি অ্যাক্টিভ মানুষ তাদের কথাবার্তা সাধারণত এই ধরনের হয় যেমন আমি কিছুই করতে পারবোনা আমি এরকমই আমি কি করবো তারা সমস্ত প্রবলেমের তারা সমস্ত প্রবলেমের সলিউশন খোঁজার বদলে সমস্যাতেই আটকে থাকে তারা সব সময় মনে পড়ে মনে পড়ে সময় মনে পড়ে সব সময় মনে পড়ে মনে পড়ে সময় মনে পড়ে যে ভাগ্যের কারণেই তাদের এই অবস্থা কিন্তু অপরদিকে যারা প্রো-অ্যাকটিভ মানুষ তারা সবসময় সবসময় মানুষ তারা সবসময় নিজের ভাগ্যকে দোষারোপ না করে যেকোনো পরিস্থিতির মুখে দাঁড়িয়ে লড়াই করে এবং সমস্ত কিছু ভালো বা খারাপ নিজের কাঁধে নেয়

একবার এক রেস্টুরেন্টে কয়েকজন মহিলা বসে গল্প করছিল এবং তাদের খাবার খাচ্ছিল হঠাৎ একটি আরশোলা তাদের মধ্যে একজন গায়ের উপর মধ্যে একজন গায়ের উপর গায়ের উপর উঠে আসে তাই দেখে সেই মহিলাটি বিশাল জোরে চিৎকার করে ওঠে এবং পুরো রেস্টুরেন্টে হাল্লা বাজিয়ে দেয় দেয় ঠিক তখন একজন ওয়েটার আসে এবং সে ওই মহিলাটির গায়ের উপর থেকে আসলা টিকে আস্তে করে ধরে করে ধরে আস্তে করে ধরে করে ধরে টিকে আস্তে করে ধরে করে ধরে আস্তে করে ধরে এবং বাইরে গিয়ে ফেলে আসে এখানে মহিলা এবং সেই ওয়েটার দুজনের কাছেই সমান সিচুয়েশন ছিলো কিন্তু দুজন পুরোপুরি আলাদা ভাবে রিয়াক্ট করেছে এটাই হলো প্রো অ্যাক্টিভ এবং রিয়াক্টিভ মানুষের মধ্যে পার্থক্য রিয়াক্টিভ মানুষ শুধুমাত্র পরিস্থিতির রিয়াক্ট করে আরো একটি মানুষ পরিস্থিতি অনুযায়ী কাজ করে যেমন ওয়েটার কোন চিৎকার না করে নিজের দায়িত্ব নিয়ে আরশোলাটি বাইরে ফেলে আসে।

রিয়াক্টিভ পেপেল সবসময় সবসময় অপরকে দোষারোপ করে যেমন দেশ উন্নতি করছে না তার কারণ গভর্মেন্ট ভালো না না ভালো না না তিনি নিজে উন্নতি করতে পারছেন না না তার কারণ তার বস ভালো নয় পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট হয়নি তার কারণ টিচার ভালো না এরকম অপরদিকে রিয়াক্টিভ পিপল সমস্ত কিছু নিজের দায়িত্ব নেয়

তুমি সব সময় চেষ্টা করো সেই সমস্ত জিনিসের উপর ফোকাস করতে যেগুলো তুমি চেঞ্জ করতে পারো নাকি সেই সমস্ত জিনিস যেগুলো তুমি কখনো চেঞ্জ করতে পারবেনা

শুরু করো শেষ দিয়ে( Start with the end mind)

মনে করো তুমি একটা শোকসভায় গেছো কিন্তু সেখানে কফিনের মধ্যে যে মানুষটি আছে সেটি আসলে অন্য কেউ নয় তুমি এখন তুমি কি চাইবে যে তোমার আশেপাশে যারা রয়েছে তারা তোমার সম্পর্কে কি ভাবো তুমি কি চাইবে যে তারা বলুক ভালোই হয়েছে লোকটা মরে গেছে লোকটা এক নম্বরের অসভ্য লোক ছিল নাকি তারা বলবে যে না লোকটা সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল লোকটা সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল না লোকটা সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল লোকটা সত্যিই খুব ভালো লোক ছিল ছিল লোক ছিল ছিল খুব ভালো লোক ছিল ছিল তুমি যদি একজন ভাল স্টুডেন্ট হতে চাও তাহলে আজ থেকে ভালো পড়াশোনা শুরু করো তুমি যদি একজন ভাল বিজনেসম্যান হতে চাও তাহলে আজ থেকে নিজে স্কিল কে ডেভেলপ করতে শুরু করো তুমি যা যা চাও তোমার অন্তিম চাও তোমার অন্তিম যা চাও তোমার অন্তিম তুমি যা যা চাও তোমার অন্তিম চাও তোমার অন্তিম যা চাও তোমার অন্তিম যা চাও তোমার অন্তিম শোভাযাত্রায় সেই সমস্ত কিছু মনে করে তুমি আজকে কি এমন কাজ করছ যে তা যে তা তোমাকে তোমার সেই স্বপ্নের জীবনে পৌঁছে নিয়ে সেই স্বপ্নের জীবনে পৌঁছে নিয়ে নিয়ে যাবে যদি না হয় তাহলে এখনই সেই সমস্ত সমস্ত করা বন্ধ করে দাও যা তোমার গোল থেকে তোমাকে দূরে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে

যে কাজ সব থেকে জরুরি জরুরি জরুরি সেটা সব থেকে জরুরি জরুরি থেকে জরুরি জরুরি সেটা সবার আগে করো আমাদের উচিত যে কাজ আমাদের জন্য সব থেকে জরুরি জরুরি সেটা সবার আগে করা এ ব্যাপারে একটা গল্প বল গল্প বল একটা গল্প বল গল্প বল তুমি আর তোমার তোমার বন্ধু স্কুল থেকে বাড়ি ফিরছো তুমি তোমার বন্ধুকে বললে আচ্ছা তুই জিমে যাচ্ছিস না কেন যাচ্ছিস না কেন সে বলল আজকাল সময় পাইনা সময় পাইনা আজকাল সময় পাইনা এমন সময় তুমি দেখতে পেলে রাস্তায় তুমি দেখতে পেলে রাস্তায় একটা ঝামেলা হচ্ছে তখন তুমি আর তোমার বন্ধু সেখানে 15 মিনিট দাঁড়িয়ে ঝামেলাটা দেখে এখানে যে তুমি তোমার জিম করার সময় পাচ্ছো না অথচ রাস্তায় দাঁড়িয়ে ঝামেলা দেখার জন্য সময় ব্যয় করছে আমরা দিনের বেশিরভাগ সময় এমন জায়গায় কাটিয়ে দি যেখানে আমাদের একদমই সময় দেওয়া উচিত নয় নয় উচিত নয় নয় এটা ঠিক করার জন্য তোমাকে আগে নিজের প্রায়োরিটি কাজ ঠিক করতে হবে এবং সেই অনুযায়ী যেটা সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সেটা কি সবার আগে শেষ করতে হবে এবং তারপরে যেটা আরেকটু কম গুরুত্বপূর্ণ সেটা করতে হবে এইভাবে একটা লিস্ট বানাতে হবে এবং সবশেষে যে কাজ গুলো না করলেও চলবে যেমন টিভি দেখা মোবাইলে গেম খেলা এই সমস্ত কাজ গুলোকে একদম মিনিমাম বা পারলে একদমই না করা সব থেকে ভালো এবং যে কাজগুলো সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ যেমন নিজের স্বপ্ন গুলোকে পূরণ করা এবং নিজের লক্ষ্যে পূরণ করা সেই সমস্ত কাজগুলো প্রতিদিন সবার আগে করতে পারা

আমাদের প্রতিদিনের জীবনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকা সত্ত্বেও আমরা ফেসবুকে সময় নষ্ট করি কিংবা ইউটিউবে ভিডিও দেখে সময় নষ্ট করি তাই যদি জীবনে তুমি সত্যিই কিছু করতে চাও তাহলে এগুলো করা বন্ধ করো এবং নিজের প্রয়োজনীয় কাজটি করো

সব সময় উইন উইন ভাবো( Think win win)

মনে করো আমার একটা ব্লগ সাইট আছে এবং তোমারও একটা ব্লগ ওয়েবসাইট আছে তো আমি কি করলাম আমার ব্লগ ওয়েবসাইটে তোমার একটা ব্লগ পাবলিশ করলাম এবং বললাম যে এটা আমার এক বন্ধুর ব্লগ সেও ভালো লেখে তোমরা চেক করতে পারো। এবং তুমিও তোমার ব্লগে আমার একটা ব্লগ পোস্ট করে একই কথা বলে তাহলে কি হল তোমার যারা অডিয়েন্স তারা আমার ব্লগে এলো এলো ব্লগে এলো এলো এবং আমার যারা অডিয়েন্স তারা তোমার ব্লগে কেন তার মানে দুজনেরই লাভ হল এবং দুজনেরই অডিয়েন্স ব্বেড়ে গেল।

কিন্তু এরকম না করে আমি যদি হিংসা করতাম যে কেন আমি আমার ব্লগ তোমার সাথে শেয়ার করব তাহলে আমার অডিয়েন্স কখনোই বাড়তো না তাই জীবনে যে কোনো সমস্যা সমাধান করতে গেলে দুজনের কি ভাবে লাভ হবে সেইটা নিয়ে সবসময় ভাবো।
ছোটবেলা থেকে আমাদের মেন্টালিটি টা এমন ভাবে তৈরি হয়েছে যে আমাদের মনে হয় যে আমার জিততে গেলে অপরের হারতে হবে কিন্তু এটা নয় দুজনেই সফল হতে পারে এটাকে স্কারসিটি মেন্টালিটি

প্রথমে নিজে বোঝো তারপর অপরকে বোঝাও

(First understand yourself then explain others)

ধরো তুমি কোন চশমার দোকানে গেছ এখন চশমা তোমার পাওয়ার না দেখেই নিজের চশমা তোমাকে দিয়ে বলল এই চশমা আমার জন্য খুব ভালো কাজ করছে এই নাও এটা তোমার জন্য খুব ভালো কাজ করবে কিন্তু তুমি ওই চশমা যখন করলে তখন তোমার চোখ আরো খারাপ দেখছে এরকমটা হওয়ার পর কতটা চান্স আছে যে তুমি ওই দোকানে আর একবার যাবে সম্ভবত একবারও না কিন্তু জীবনেও আমরা ওই চশমার দোকান দারের মত যখন আমরা লোকের সঙ্গে কথা বলি তখন তাদের সমস্যা ভালভাবে বোঝার থেকে আমরা সলিউশন দেওয়া বা লড়াই করা শুরু করে দে আমরা সব সময় বলি কেউ আমাকে বোঝেনা কিন্তু সত্যি কথা বলতে আমরাও কাউকে বুঝতে চাই না আমরা সব সময় সময় ভাবি যে আমরা সব সময় সময় ভাবি যে সামনের জন কি বলছে কিন্তু আমাদের ভাবা উচিত সামনের জন কেন বলছে এবং কেন এরকম ফিল করছে তাই যখন তুমি এবার থেকে কথা বলবে তখন কাউকে রিপ্লাই দেওয়ার বদলে তার কথা বোঝার চেষ্টা কর

একসাথে কাজ করা( Work together)

যদি দুটো গাছকে পাশাপাশি লাগানো হয় তাহলে তারা তাদের গাছের শিকড় পরবর্তীকালে মাটির মধ্যে মিলেমিশে কোয়ালিটি খুব ভালো হয় এবং কাজগুলো খুব ভালো বাড়ে অপরপক্ষে যদি গাছ দুটি অনেক দূরে দূরে দূরে অনেক দূরে দূরে দূরে দুটি অনেক দূরে দূরে দূরে দুটি অনেক দূরে দূরে দূরে অপরপক্ষে যদি গাছ দুটি অনেক দূরে দূরে দূরে অনেক দূরে দূরে দূরে দুটি অনেক দূরে দূরে দূরে অনেক দূরে দূরে লাগানো হয় তাহলে সেই গাছ অপেক্ষাকৃত কম বড় হয়।

একবার দুজন লোক মিলে একটা গাছ থেকে আপেল পারার চেষ্টা করছি কিন্তু আপন গুলো একটু দূরে ছিল তখন লোকটা কি করলো একটা লোক আরেকজনের কাছে উঠল এবং সহজেই আপেলটা হাতে পেয়ে গান এই গল্পটা থেকে এটাই শিক্ষনীয় যে আমরা যখন একা কোন কাজ করি তখন আমরা একটা লিমিট পর্যন্তই কাজটা করতে পারব কিন্তু যখন আমরা অনেক জন মিলে দুজন তিনজন বা আরো অনেক জন মিলে একটা কাজ করি তখন সেই কাজটা আউটপুট আমরা দশ গুন বেশি করতে পারব তাই সবসময় ভাববে যে কি করে আরো মানুষকে দিয়ে তুমি কোন কাজ করাতে পারো

কুড়ুল এ ধার দাও( Sharpen your Saw)

একবার এক মানুষ একটা গাছ কাটার জন্য খুব চেষ্টা করছেন সে অনেকক্ষণ ধরে কুঠার দিয়ে গাছে আঘাত করছিল কিন্তু কিছুই হচ্ছিল না হচ্ছিল না তখন সে অন্য একটা মানুষের কাছে গেল সে উপদেশ দিল যে আগে কুঠারে ধার দিতে হবে তখন সে লোকটা বলল আচ্ছা কুঠারে ধার দিতে গেলে তো অনেক সময় লাগবে আমরা জীবনে ঠিক এটাই করি আমরা প্রতিদিন 30 মিনিট এক্সারসাইজ করতে পারি না না যাতে আমাদের শরীর খুব হেলদি থাকে 15 মিনিট কোন বই পড়তে পারি না যাতে আমাদের জ্ঞান বাড়ে অথচ আমরা বলি আমার জীবনে কেন সফল হতে পারছি না। উঠারে ধার দেওয়ার অর্থ হলো নিজের উপর কাজ করা নিজের ফিজিকাল মেন্টাল ইমোশনাল এবং সোশ্যাল কোয়ালিটির উপর কাজ করা এই কোয়ালিটি গুলো যত বাড়বে তত আপনি জীবনে সফলতা পাবেন

Leave a Comment