কিভাবে জীবনে সফল হতে পারবেন ?সফল মানুষদের এই ৬ টি অভ্যাস

আপনার হয়তো জীবনের একটাই ইচ্ছা আছে যে আপনি একটা নতুন বিএমডব্লিউ গাড়ি কিনতে চান কিন্তু আপনি যদি ধনী লোক না হন তাহলে পরের দিন সকালে উঠে কি আপনি আপনার ইচ্ছা পূরণ করতে পারবেন পারবেন না ঠিক এরকমই হয় আমাদের প্রতিটা বড়-ছোট ইচ্ছার ক্ষেত্রে আপনার হয়তো ইচ্ছা আছে আপনার কলেজের সবচেয়ে সুন্দরী মেয়েকে নিজের গার্লফ্রেন্ড বানানো অথবা নিজের ব্যবসা আরো বেশি বড়ো করে তোলা

সমস্ত ইচ্ছা পূরণ করতে আপনাকে একটা প্রসেস ফলো করতে হবে একটা রাস্তা হল করতে হবে একটা রাস্তা হল ফলো করতে হবে একটা রাস্তা হল ফলো করতে হবে একটা রাস্তা হল একটা রাস্তা হল আপনার ইচ্ছা সেই রাস্তায় চলা অতটা সহজ নয় বহু বাধা বিঘ্ন আসবেই বাধা অতিক্রম করার জন্য আপনার দরকার ডেডিকেশন আজকের এই ব্লগ পোস্ট টা সম্পূর্ণ পড়ুন টা সম্পূর্ণ পড়ুন টা সম্পূর্ণ পড়ুন কারণ আজকে আমি সঠিক উপায়ে বলবো বলবো যে কিভাবে আপনি আপনার স্বপ্নকে বাস্তবে রূপান্তরিত করতে পারবেন

আপনার সাবকনসাস মাইন্ড কে ব্যবহার করো করো

আপনি হয়তো শুনলে অবাক হবেন সেলাই মেশিন আপেক্ষিকতাবাদের সূত্র পরমাণুর গঠন থেকে শুরু করে সূত্র পরমাণুর গঠন থেকে শুরু করে আপেক্ষিকতাবাদের সূত্র পরমাণুর গঠন থেকে শুরু করে সূত্র পরমাণুর গঠন থেকে শুরু করে পরমাণুর গঠন থেকে শুরু করে পিরিয়ডিক টেবিল বেনজিনের স্ট্রাকচার ঘুমানোর সময় স্বপ্নে দেখা ইনফর্মেশন এর মাধ্যমে আবিষ্কার হয়েছিল যখন আমরা ঘুমোতে যাই তখন আমরা যে ঘুমাতে সেই সময় আমরা যে চিন্তা করি সেগুলো আমাদের সাবকনসাস মাইন্ড এ বসে যায় আর আমাদের অবচেতন মনের শক্তি অসীম সেটা আর বলার অপেক্ষা রাখেনা তাই যখন আপনি ঘুমাতে চাচ্ছেন তখন যদি ইচ্ছা গুলো সম্পর্কে একটু চিন্তা করেন তাহলে সেগুলো সফল করার সম্ভাবনা অনেকখানি বেড়ে যাবে

আপনি ভাবুন যে কেন আপনি ভালো ইনকাম করতে পারছেন না কেন আপনার রিলেশনশিপ ঠিক নেই কেন আপনি জীবনকে সঠিক পথে চালনা করতে পারছেন না এবং এর কারণগুলো একটা প্লেন নিয়ে কাগজে লিখে ফেলুন এবং লাল কালির পেন ব্যবহার করুন কারণ লাল কালির মধ্যে একটা প্যাশন এবং ডেলিগেশনের সম্ভাবনা লুকিয়ে থাকে যেমন একটা প্রচন্ড রোদের দিনে কেউ যদি একটা লাল রঙের পোশাক পড়ে তাহলে চোখ দেখেই চলে

তাই আজকে একটা লাল কালির পেন দিয়ে আপনার অসম্পূর্ণ ইচ্ছাগুলোকে লিখে রাখুন তারপর সেগুলো নিয়ে ভাবতে ভাবতে ঘুমিয়ে পড়ো এবার সারারাত আপনার অবচেতন মন সারারাত আপনার অবচেতন মন সেই প্রশ্নের উত্তর খোঁজার কাজ চালিয়ে যাবে এতে আপনার ইচ্ছা পূরণের পথে অর্ধেক রাস্তা পরিষ্কার হয়ে যাবে

একবারে একটাই কাজ করো

সবথেকে হাস্যকর ব্যাপার হলো আমরা চাই যে আমাদের ইচ্ছাগুলো কালী পূরণ হয়ে যাক এজন্য আমরা একসঙ্গে অনেকগুলো কাজ করতে থাকে যার ফলে আমরা কোন কাজই ঠিকঠাকভাবে করতে পারিনা ঠিকঠাকভাবে করতে পারিনা
আমরা আমাদের জীবনের লক্ষ্য তৈরি করে ফেলি কিন্তু যখন সে লক্ষ্যের দিকে এগোতে চায় তখন মনে হয় উরে বাবা কতগুলো সিরি আমাকে যেতে হবে তাই আমরা একটা একটা শিরিনা লোককে আমার একেবারে জাম দিতে চেষ্টা করে পিছিয়ে পড়ে

তাই কতগুলো স্টেপ এটা না ভেবে প্রথম স্টেপ এপা দিন তারপর কিছু না ভেবে দ্বিতীয় স্টেপ ভাবে দেখবেন একদিন আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছে আপনি আপনার লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে

নিজের সিদ্ধান্তগুলো কে মূল্য দিন

আমাদের সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নিজের অনেকগুলো সিদ্ধান্ত নিতে হয় সকালে উঠে কি খাব থেকে শুরু করে
অফিসে কোন শার্ট পড়ে যাব ক্লায়েন্টের ডিল কিভাবে ক্লোজ করবো মাথার মধ্যে চলতে থাকে

এই সমস্ত ছোট বড় সিদ্ধান্ত আপনার ইচ্ছা শক্তির উপর ডাইরেক্টলি বা ইনডাইরেক্টলি প্রভাব ফেলতে থাকে। আপনার হয়তো ইচ্ছা ছিল যে এই বছরের শেষের মধ্যে আমি মাসে 1 লক্ষ টাকা ইনকাম করব অথবা পরিবারের সাথে কোন একটা জায়গায় ঘুরতে যাব কিন্তু বছরের শেষে আপনি আপনার ইনকামে শেষে আপনি আপনার ইনকামে লক্ষ্যে পৌঁছাতে পারলেন না এবং কোন জায়গায় ঘুরতে গেলেন না এর প্রধান কারণ হলো প্রতিদিন সিদ্ধান্ত তুমি সেগুলো কে পর্যাপ্ত গুরুত্ব না দেওয়া

তাই প্রতিদিন নামা প্রতিটা সিদ্ধান্তকে সমান গুরুত্ব দিতে শিখুন।

সিদ্ধান্ত গুলোর মধ্যে যেগুলো আপনার জীবনের লক্ষ্য পূরণ করতে সাহায্য করবে কেবলমাত্র সেগুলোকেই বেছে নেই বাকী সিদ্ধান্ত গুলো বাদ দিন

যেমন আপনি যদি ডায়েট করতে চান তো প্রতিদিন লাইফে মনে হবে যে একটা চকলেট কি আমার কি হবে কিন্তু এই সিদ্ধান্তকে আপনাকে পাত্তা দিলে হবে না

নিজের মতামত নিজের জিজ্ঞাসা করুন

ধরুন আপনি একটা ব্যবসা খুলতে চাইছেন তখন আপনি আপনার বন্ধু পরিবারকে বললেন এবং 10 জনকে বললে 10 জন বললে 10 জন জন আলাদা রকম উত্তর দেবে ঈদের মধ্যে বেশির ভাগ ভাগ জনি বলবে যে তোর দ্বারা হবে না তুই পারবি না তখন আপনি দি মটিভেট হয়ে যাবেন হয়তো কোনদিন আর সেই ব্যবসাটা শুরু করলেন তাই তখন আপনি নিজেকে প্রশ্ন করুন যে আপনি কি সত্যিই ব্যবসা করতে পারবেন এবং ব্যবসা করতে ইচ্ছুক যদি উত্তর হয় হ্যাঁ তাহলে আপনি অন্যদের মতামতকে গুরুত্ব দেবেন না কারণ আপনার জীবন আপনার হাতে অন্যদের মতামত আপনার জীবনকে যেন কোনদিন প্রভাবিত না করে আবার উত্তর যদি না আসে তাহলে দেখুন যে কেন আপনি পারবেন না

আপনার মনের ইচ্ছা টা আছে সেটা কেবলমাত্র আপনার ইচ্ছা তাই এখানে যে মানুষটা মতামত সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ সেটা হল আপনার মতামত

জয়ী’ মানুষেরা কখনো এক্সকিউজ দেয় না

আপনি হয়তো আপনার বন্ধুকে বলতে শুনেছেন ভাই আজ থেকে আর কোনদিন আমি ড্রিঙ্ক করব না কিন্তু কিছুদিন পরেই আপনি দেখতে পেলেন সে আবার রিং করা শুরু করেছে তাকে জিজ্ঞেস করলে সে হয়তো বলবে আমি আগের মতো করি না না করি না না এখন খুব কম করি আসলে আমরা নিজেদেরকে এবং আমাদের মন ভুলিয়ে রাখি

যদি নিজেকে প্রশ্ন করেন যে আপনার জীবনের লক্ষ্য গুলো পূরণ করতে কোন জিনিসটা আপনাকে আটকাচ্ছে টাকা শক্তি নাকি সময় নাকি আপনি নিজেকে নিজেই আট কাটছেন

আর একটা মিথ্যাকে একটা সত্যিই থামাতে পারে আর সেই সত্যিই এগুলো খুঁজে বার বার খুঁজে বার বার এগুলো খুঁজে বার বার সত্যিই এগুলো খুঁজে বার বার খুঁজে বার বার এগুলো খুঁজে বার বার খুঁজে বার করার জন্য আপনার কাছে সময় আছে এনার্জী আছে এবং নলেজ আছে উইল পাওয়ার আছে তাহলে কেন আপনি নিজের লক্ষ্য পূরণ করতে পারবে না

কোন কিছুর শেষ না করা পর্যন্ত হাল ছেড়ো না

আপনি হয়তো খুব আশা নিয়ে একটা জিমে ভর্তি হয়ে গেলেন। আপনি খুব ভালো একটা বডি বানাবেন তার উদ্দেশ্যে তারপর রেগুলার কিছুদিন যাওয়ার পর আপনার মনে হতে লাগলো যে আমি তো এত পরিশ্রম করছি কিন্তু আমারতো বডি তৈরি হচ্ছে না তাই এসব জিম করে কিছু হয় না এটা বলে পরের দিন থেকে আর জিমে যাওয়া বন্ধ করে দেওয়া এবং দুপুর বারোটার সময় ঘুম থেকে ওঠা আপনাকে এটা বুঝতে হবে যে যেকোনো জিনিস ফল পেতে গেলে পরিশ্রম করার সাথে সাথে আপনাকে ধৈর্য ধরতে হবে সবকিছু এক নিমেষে পাওয়া যাবে না হয়তো আমার জিম করার পর একটা ভালো বডি পেলে কিন্তু আপনার মন কিছুতেই ধৈর্য্য না ধরার কারণে আপনি আপনার রেজাল্টে পৌঁছাতে পারলেন না তাই সবসময় মনে রাখবেন আপনি যে উদ্দেশ্যে নেমেছেন সেই উদ্দেশ্য পূরণ না করা পর্যন্ত হাল ছাড়বেন না

Leave a Comment